বৃত্ত আর্টস ট্রাস্টের আয়োজনে ‘Gold Gilding’ কর্মশালা

সেই সময়ের গল্পে খুঁজে পাওয়া যায় এমন স্বর্ণখোচিত চিত্রমালার, ভাস্কর্যের। যেখানে সোনালী রঙ স্থান পেত স্বর্গীয় নিদর্শন হিসেবে। তবে সে কেবলই রঙ নয়, একদম খাঁটি সোনাই ব্যবহার করত শিল্পীরা। সেই মিশরীয় সময়ে শুরু, গ্রীক কিংবা রোমানদের ভাস্কর্যে ব্যবহৃত হয়েছে বটেই অন্যদিকে ব্যাপক প্রাধাণ্য পেয়েছে মধ্যযুগের শিল্পকলাতেও।

সেই সময়ের সেই গোল্ড গিল্ডিং পদ্ধতিতে আজও কাজ করছেন শিল্পীরা। যদিও প্রচলিত পদ্ধতির পাশাপাশি সেখানে আধুনিক অনেক পদ্ধতিও যুক্ত হয়েছে। ইতিহাসের পথচলায় ব্যবহৃত হয়েছে স্থাপত্যেও। তবে চিত্রকলায় সেই স্বর্ণপাতার ব্যবহার যেন এখনো পুলকিত করে শিল্পীদের।

২০ শতকের সময়ে শ্বর্ণের ব্যবহার

জার্মান শিল্পী ক্যাথরিনা রুডলফ বাংলাদেশে এই গিল্ডিং পদ্ধতি নিয়েই পরিচালনা করলেন এক কর্মশালার। আয়োজিত হয়েছিল বৃত্ত আর্ট ট্রাস্টের উদ্যোগে। শিল্পী ক্যাথরিনার হাত ধরে বাংলাদেশের শিল্পীরা তাদের শিল্পকর্মের পদ্ধতিগুলোতে সংযুক্ত করলেন আরও একটি পুরোনো মাধ্যম, নতুন করে। অনেকে ঝালাই করে নিলেন এই গিল্ডিং পদ্ধতি যা ক্যাথরিনা শিখিয়েছেন সেই প্রাচীন কালের পরিচিত পদ্ধতিতে। ব্যক্তিগত শিল্পমাধ্যম চর্চায় ক্যাথরিনার এই কাজের শুরু হয়েছিল ১৯৯৮ সালে। এখনো চলছে তার পথচলা।

শিল্পী ক্যাথরিনা রুডলফ

গত ১২ থেকে ১৯ আগস্ট পর্যন্ত মোট ১২ জন শিল্পীকে নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় এই কর্মশালা। গতকাল ১৯ আগস্ট ছিল ওপেন স্টুডিওর দিন। সেখানে প্রদর্শিত হয়েছে শিল্পীদের কর্মশালায় তৈরি স্বর্ণখোচিত চিত্রমালা।

কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেছিলেন যারা।

জার্মান শিল্পী ক্যাথরিনা রুডলফ বাংলাদেশে অবস্থান করছেন বৃত্ত আর্ট ট্রাস্টের আর্টিস্ট রেসিডেন্সি প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে। তার পরিচালিত সংবেদনশীল এই কর্মপদ্ধতিতে শিল্পীরাও কর্মশালায় অংশ নিয়েছেন তাদের নিরলস উপস্থিতি ও কর্মজজ্ঞ দিয়ে।

mm
Zannatun Nahar

Zannatun Nahar Nijhum, an aspiring writer and traveler who loves to learn from the nature.