অবশেষে দেখা দিয়েছেন হুমায়ূন আহমেদের রহস্যময় চরিত্র মিসির আলী। এই মিসির আলী বড়পর্দায় আসবেন দর্শকদের কাছে। বলছিলাম দেবী সিনেমার কথা। আপাতত আগামী নভেম্বরে সিনেমার মুক্তির সময় নির্ধারিত হয়েছে। গল্প আজ নতুন টিজারকে ঘিরে।

দেবী সিনেমার পূর্ববর্তী টিজার সারা ফেলেছে ইতিমধ্যে। তবে পোস্টার ছাড়া মিসির আলী ছিলেন না কোথাও। গতকাল সেই অপেক্ষা ফুরিয়েছে।  হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুদিনে সিনেমার নতুন টিজারে দেখা মিলেছে চঞ্চল চৌধুরী অভিনীত মিসির আলী চরিত্রটির। এতদিন এরই অপেক্ষায় ছিল দর্শক। কতখানি সফল অনম বিশ্বাস? টিজারটি আবার দেখুন-

হুমায়ূন আহমেদ তার কর্মজীবনে বড়পর্দা কিংবা ছোট পর্দায় দু’জায়গাতেই সারা ফেলেছিলেন তার নিজস্ব নির্মাণে। তবে নিজের সৃষ্ট বিখ্যাত দুই চরিত্র মিসির আলী কিংবা হিমু দু’টি চরিত্রকেই তিনি বইয়ের বাইরে আনেননি।

তার সৃষ্ট বিখ্যাত চরিত্র মিসির আলীকে নিয়ে নির্মাতাদের আগ্রহ ছিল বরাবরই। মিসির আলী প্রথমবার ছোটপর্দায় এসেছিলেন ১৯৮৭ সালে। তখন হুমায়ূন আহমেদের মিসির আলীকে নিয়ে লেখা প্রথম উপন্যাস দেবীর বয়স হয়েছিল মাত্র দুই বছর। চরিত্রটিতে রূপদান করেন আবুল হায়াত। অন্য ভুবনের সে এবং পরবর্তীতে ১৯৮৯ সালে অন্য ভুবনের ছেলেটা, মোট দুটি নাটকের মিসির আলী চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি।

১৯৮৭ সালের মিসির আলী

পরবর্তী সময়ে নির্মাতা অনিমেষ আইচ মোট ৩টি নাটক নির্মাণ করেছিলেন। তার প্রথম নাটক ছিল বৃহন্নলা। সেই নাটকে মিসির আলী চরিত্রে অভিনয় করেন শতাব্দী ওয়াদুদ।

বৃহন্নলায় মিসির আলী 

একই নির্মাতার পরবর্তী নাটক ‘নিষাদ’এ মিসির আলী চরিত্রে অভিনয় করেন আশীষ খন্দকার।

বিখ্যাত নিষাদ উপন্যাসের নাটকে মিসির আলী

মিসির আলীকে নিয়ে লেখা ছোটগল্প স্বপ্ন সঙ্গিনী নিয়ে নির্মিত নাটকে অভিনয় করেছিলেন হুমায়ুন ফরিদী। এই নাটকটিরও নির্মাতা ছিলেন অনিমেষ আইচ।

হুমায়ুন ফরিদী, মিসির আলী চরিত্রে

মিসির আলী চরিত্রে এছাড়াও অভিনয় করেছিলেন আবুল খায়ের। নির্মাতা রেদোয়ান রনির নাটকেও একবার মিসির আলী চরিত্রের দেখা মিলেছিল।

তবে বড়পর্দায় প্রথমবার বলেই কিনা দেবী সিনেমার মিসির আলীকে ঘিরে আগ্রহ চুড়ান্তে পৌঁছেছে। কিন্তু যদি দর্শক পছন্দের জায়গা থেকে ধরা হয় তবে কোন অভিনেতা মিসির আলী চরিত্রে শতভাগ সফল হয়েছেন সেই প্রশ্নের উত্তর মিলবে  সিনেমা মুক্তির পরেই।

Zannatun Nahar Nijhum, an aspiring writer and traveler who loves to learn from the nature.