ভাইকিংদের ভুল বুঝবেন না!

জলদস্যুদের গপ্পো পড়ার ইতিহাস আমাদের আজকালের নয়। সেই সুবাদেই ভাইকিং জলদস্যুদের কথা মনে করতে আমাদের তেমন বেগ পাওয়ার কথা নয়। তবে ভাইকিং মানেই ভয়াল জলদস্যু, এমনটা এখনো ভেবে বসে থাকলে ভুল করবেন। ‘হাউ টু ট্রেইন ইওর ড্রাগন’র হিকাপ নামের সেই ছেলেটি, কিংবা হিস্ট্রি চ্যানেলের জনপ্রিয় সিরিজ ‘ভাইকিংস’ এর প্রোটাগনিস্ট র‌্যাগনার লথব্রক; এরা কেউই কিন্তু ডাকাবুকো দস্যু ছিল না। আর এতো গেল গল্প-সিনেমার কথা, আদতেও ভাইকিংদের সবাই জলদস্যু ছিল না—আর তাদের অনেকেরই জীবনযাপনের ঘরানা ছিল বেশ গোছানো, আর সাধারণ। সত্যি বলতে, ভাইকিংদের নিয়ে আমাদের যেমনটা ধারণা, তাকে অনেকটাই কল্পে ভরা গল্প বললে ভুল হবে না।

১. বইপত্রে বা সিনেমায় যেমনই দেখুন, আদতে মোটেও শিঙওয়ালা শিরস্ত্রাণ পরতো না ভাইকিং জলদস্যুরা। ওদের শিরস্ত্রাণ ছিল সাধারণ, নাকের সামনে স্রেফ একটা নোজ গার্ড থাকত। নাক কাটা পড়ার ভয় দস্তুরমত ছিল কি না, কে জানে!

ভাইকিংদের যুদ্ধসাজ

২. ভাইকিং মানেই হারেরেরে বলে তেড়ে আসা বদখত আর ময়লামাখা দস্যুর দল নয়। ওরা বেশ পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন ছিল। ওদের ব্যবহৃত ক্ষুর, চিরুনির সন্ধান পেয়েছেন আর্কিওলজিস্টরা। সপ্তায় নাকি নিদেনপক্ষে একদিন গোসলও করত তারা (সে সময় সপ্তায় একদিন গোসল করা চাট্টিখানি কথা ছিল না, জেনে রাখুন)!

ভাইকিং চিত্র

৩. ভাইকিংরা নিজেদের জাহাজের সামনে শেষকৃত্য হওয়াটাকে বিশাল সম্মানের, বলতে গেলে জীবনের শ্রেষ্ঠতম প্রাপ্তি বলে মনে করত। তাদের বিশ্বাস ছিল অনেকটা এ রকম, এই জাহাজটিই তাদের পরকালের দিকে বহন করে নিয়ে যাবে।

একসময় সাগর কাঁপাতো ভাইকিং নৌবহর

৪. ভাইকিংদের সবাই কিন্তু দস্যু ছিল না। সত্যি বলতে, তাদের মধ্যে দস্যুবৃত্তি বেছে নিত খুব কম পুরুষই। যে সব পুরুষ দস্যু হতো না, তাদের অধিকাংশই জীবিকা নির্বাহ করত কৃষিকাজ করে। ভাবুন তো, ক্ষেতে-খামারে কাজ করা ভাইকিংরা কেমন ছিল!

শিল্পীর তুলিতে ভাইকিং বসতি

৫. ভাইকিং নারীরা পরিবার আর ঘরবাড়ির দেখভাল করত। যথেষ্ট স্বাধীন জীবনযাপন করার অধিকার ছিল তাদের। নিজেদের জমিজমার ওপর অধিকার রাখত তারা, পুরুষদের থেকে যৌতুক নিতে পারত, এমনকি তাদের নাকি ডিভোর্স দেওয়ারও রীতি ছিল! আজকের এই আধুনিক যুগে বহুদেশেই নারী স্বাধীনতা কিংবা নিরাপত্তার প্রেক্ষিতটি ভাইকিংদের চেয়ে শতগুণে পিছিয়ে। এ ক্ষেত্রে আমাদের দেশের মতো টাটকা উদাহরণ আর ক’টা হয়!

ভাইকিং নারীরা পেতেন সমমর্যাদা

সূত্র ও ছবি- দ্য ভিন্টেজ নিউজ

mm
Sami Al Mehedi

Sami Al Mehedi is an ex-newsman and a keen traveler who recently left behind a stable career in news media. Now being a bad boy of advertising arena, he spares moments to write to bring peace to his restless soul.

FOLLOW US ON

ICE Today, a premier English lifestyle magazine, is devoted to being the best in terms of information,communication, and entertainment (ICE).